আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
«» নাচোলে বয়সভিত্তিক সাঁতার প্রতিযোগীতার উদ্বোধন হয়েছে «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা জাসদের উদ্দ্যোগে বিভিন্ন দাবিতে গণমিছিল ও সমাবেশ «» বাংলাদেশ ফুটবল দলকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা «» শিশু তুহিনের হ’ত্যাকারী বাবার পক্ষে কোনো আইনজীবী লড়বেন না «» বেনাপোল কাস্টম হাউস এখন জয় জয় ধ্বনিতে মুখরিত «» যশোরের শার্শায় এইডস সচেতনতায় করনীয় শীর্ষক আলোচনা সভা «» নাচোলে প্রতিবন্ধি শিশুকে হুইলচেয়ার প্রদান করলেন ইউএনও «» সিরাজগঞ্জ সদরে যমুনায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ ধরার অপরাধে ০৭ জেলের কারাদন্ডঃ «» গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে র‌্যালি «» ভোলাহাটে স্বর্ণকাপ ফুটবল প্রতিযোগীতা উদ্বোধন

সঙ্গীত শিল্পী শ্যামল কৃষ্ণ দাস’র ২০ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ

আর কে আকাশ :

আজ সঙ্গীত শিল্পী শ্যামল কৃষ্ণ দাসের ২০ম মৃত্যু বার্ষিকী। তিনি ১৯৯৯ ইং ২৯শে সেপ্টেম্বর এর পরলোকগমন করেন।
সঙ্গীত শিল্পী শ্যামল কৃষ্ণ দাস পাবনার বেড়া উপজেলার দাসপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫২ ইং সালে পড়ালেখার জন্য তিনি পাবনায় চলে আসেন। ১৯৫৩ ইং সালে মেট্রিক পাশ করেন এবং পাবনা শহীদ বুলবুল কলেজ থেকে ১৯৫৮ ইং ও ১৯৬২ ইং সালে যথাক্রমে এইচএসসি ও ডিগ্রি পাস করেন।
ছোট বেলা থেকেই তিনি বংশ পরম্পরায় সঙ্গীত চর্চা করতেন। ১৯৬০ সাল থেকে পাবনার সঙ্গীত গুরু পন্ডিত নারায়ন চন্দ্র বসাক এর কাছে তালিম নেন।
শ্যামল কৃষ্ণ দাস পাবনা শহীদ সাধন সঙ্গীত মহাবিদ্যালয়ের ১ম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন (১৯৭২ ইং সাল)। তখন থেকেই তিনি পাবনায় সঙ্গীতের মহাসাধক পন্ডিত প্রমথনাথ চৌধুরীর কাছে উচ্চাঙ্গ সংগীতের তালিম নিতে শুরু করেন। বলা বাহুল্য পন্ডিত প্রমথনাথ চৌধুরী সে সময় উক্ত কলেজে অধ্যাপক ছিলেন। তিনি ১৯৮৩ ইং সাল পর্যন্ত তালিম নিয়েছেন।

শ্যামল কৃষ্ণ দাস ১৯৬৮ ইং সালে পাবনা এডরুক কোম্পানি লিমিটেড এ চাকরি শুরু করেন এবং পাশাপাশি সঙ্গীত শিক্ষাদান ও পাবনা বনমালী ইন্সটিটিউট এ মঞ্চায়িত বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করেছেন। তিনি মূলত উচ্চাঙ্গসংগীত, কীর্তন ও শ্যামা সঙ্গীত চর্চা করতেন।
তার ছেলে সুব্রত কৃষ্ণ দাস পাবনার বিশিষ্ট্য তবলা বাদক। তিনি বাংলাদেশ বেতার রাজশাহীর একজন নিয়মিত শিল্পি (তবলা লহড়া) এবং পাবনা জেলা শিল্পকলা একাডেমীর (তবলা) সহকারী প্রশিক্ষক।

error: Content is protected !!